সমাবেশে ৬ শর্ত অমান্য করেছে বিএনপি

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ১১ মাস আগে

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপিকে সমাবেশ করতে ২৩ শর্ত দিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)। তবে বুধবারের আনুষ্ঠানিক সমাবেশে ৬টি শর্ত অমান্য করেছে দলটি।

ডিএমপির ২৩ শর্তের মধ্যে ৪ নম্বরটি ছিল- নিরাপত্তার জন্য নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় পর্যাপ্ত স্বেচ্ছাসেবক (দৃশ্যমান আইডি কার্ডসহ) নিয়োগ করতে হবে। কিন্তু সমাবেশে আইডি কার্ডসহ কোনো স্বেচ্ছাসেবক ছিলেন না।

৫ নম্বর শর্তে বলা হয়, পুলিশ ও প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় সমাবেশ স্থলের চারদিকে উন্নত রেজ্যুলেশনযুক্ত সিসি ক্যামেরা স্থাপন করতে হবে। কিন্তু সমাবেশকে কেন্দ্র করে কোনো সিসি ক্যামেরা স্থাপন করেনি বিএনপি।

৬ নম্বরে শর্ত ছিল, নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় সমাবেশে আগতদের হ্যান্ড হেল্ড মেটাল ডিটেক্টরের মাধ্যমে চেকিং করতে হবে। কিন্তু বিএনপির সমাবেশ আগত নেতাকর্মীদের চেকিং করার জন্য কোনো মেটাল ডিটেক্টর রাখা হয়নি।

ডিএমপির ৭ নম্বর শর্তে উল্লাখ করা হয়েছিল, নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় সমাবেশস্থলে অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা রাখতে হবে। কিন্তু বিএনপির সমাবেশে কোনো অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র দেখা যায়নি।

১৫ নম্বর শর্ত অনুযায়ী, সমাবেশের সার্বিক কার্যক্রম শেষ করতে বলা হয়েছিল দুপুর ২টা থেকে বিকেল ৫টার মধ্যে। অথচ বিকেল সাড়ে ৫টার দিকেও মির্জা ফখরুলসহ বিএনপি নেতাদের সমাবেশ মঞ্চে বক্তব্য দিতে দেখা গেছে।

ডিএমপির ১৬ নম্বর শর্তে বলা হয়, কোনো অবস্থাতেই মূল সড়কে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা যাবে না। কিন্তু বিএনপির সমাবেশের মঞ্চ তৈরি করা হয় নয়াপল্টন তাদের দলীয় কার্যালয়ের সামনের সড়কে। ফলে বেলা ১১টার পর থেকেই ফকিরাপুল থেকে নাইটিঙ্গেল মোড়গামী সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। আর বেলা ১টার পর থেকে কাকরাইল মোড় থেকে ফকিরাপুল মোড়গামী সড়কে নেতাকর্মীরা অবস্থান নিলে গাড়ি চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির সম্পাদকমণ্ডলীর এক সদস্য বলেন, উন্মুক্ত স্থানে এসব শর্ত মানা যায় না। চাইলেও ডিএমপির দেওয়া এত অল্প সময়ে সমাবেশ শেষ করা যায় না।