‘সমৃদ্ধ কুমিল্লা গড়তে হলে, ভোটারদেরকে কেন্দ্রে যেতে হবে’

জাহিদ হাসান নাইম ।।
প্রকাশ: ৪ মাস আগে

‘কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন উপ-নির্বাচন : কেমন মেয়র চান শিক্ষকবৃন্দ’ -বিষয়ক টক শো অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (৪ মার্চ) রাতে কুমিল্লা আল নূর হসপিটালের সৌজন্যে দৈনিক আমাদের কুমিল্লা ও জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল কুমিল্লার জমিনের যৌথ উদ্যোগে এ টক শো অনুষ্ঠিত হয়। সাংবাদিক, সংগঠক ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক লেখক শাহাজাদা এমরানের সঞ্চালনায় ১১০ তম পর্বে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর জামাল নাসের, ভাষা সৈনিক অজিতগুহ মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ মোঃ শরিফুল ইসলাম ও কুমিল্লা হাউজিং এস্টেট স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ জহিরুল আলম।
এ সময় টকশোতে আসন্ন কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন মেয়র পদে উপনির্বাচন বিষয়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা উঠে এসেছে।
প্রফেসর জামাল নাসের বলেন, কুমিল্লা হচ্ছে সৌন্দর্য্য ও ঐতিহ্যের নগরী। কালের বিবর্তনে সেই সৌন্দর্য্য আজ বিলুপ্তির পথে। কুমিল্লা খুবই নবীন একটি সিটি কর্পোরেশন। কুমিল্লা হচ্ছে পথিকৃৎ কুমিল্লা। অর্থাৎ , কুমিল্লা পথ দেখায়। আমরা চাই একটি তারুণ্যনির্ভর নেতৃত্ব ,যাতে জনগণ তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে নিয়ে আসে। এবার ১২ হাজার নতুন ভোটার রয়েছে। তাদের প্রত্যাশা অনেক। তারা চায়, দুর্নীতিমুক্ত ও মাদকমুক্ত সিটি কর্পোরেশন। কুমিল্লাকে যিনি মাদকমুক্ত করতে পারবেন, তাকেই আমরা মেয়র হিসেবে চাই। আবার, জলাবদ্ধতাও দূর করতে হবে ও কিছু তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর আধুনিক বিদ্যালয় গড়ে তুলতে হবে। তাহলেই স্বপ্নের কুমিল্লা গড়ে উঠবে। তবে, নির্বাচন নিয়ে শঙ্কিত নই। আমার মনে হয় মানুষ নির্বিঘ্নে ভোট দিতে যেতে পারবে। আর পুরুষের পাশাপাশি অনেক নারী ভোটারও রয়েছেন। আমি মনে করি, নারী ভোটাররাও ভোট দিতে যাবে। সমৃদ্ধির কুমিল্লা গড়তে ভোটারদেরকে কেন্দ্রে যেতে হবে। ভোট একটি পবিত্র আমানত, আমাদের এই আমানতকে যথাযথভাবে রক্ষা করতে হবে।

মোঃ শরিফুল ইসলাম বলেন, আমি এমন একজন মেয়র চাই, যিনি দুর্নীতির উর্ধ্বে থাকবেন। জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য আগের মেয়র থাকাকালীনই বরাদ্ধ করেছিলো সরকার। কিন্তু, শহরের রাস্তাঘাটগুলোর এখনো বেহাল দশা। ড্রেন থাকার কথা রাস্তার নিচে, কিন্তু, সেই ড্রেন থাকে রাস্তার উপরে। রাস্তার পানি ড্রেনে যাবে, নাকি ড্রেনের পানি রাস্তায় আসবে। যার কারণে জলাবদ্ধতা লেগেই থাকে। আমি বলবো, ভোট হচ্ছে জনগণের, আর জনগণের তাই এই ভোট দিয়েই তাদের কাঙ্ক্ষিত প্রার্থীকে নির্বাচিত করতে হবে।
জহিরুল আলম বলেন, আমরা এমন একজন মেয়র চাই, যিনি প্রগতিশীল চিন্তাধারার থাকবেন। যিনি কুমিল্লা নামে বিভাগ এনে, কুমিল্লাকে একটি মেট্রোপলিটন সিটিতে রুপ দিবে। রাস্তার পানি যেখানে ড্রেনে যাওয়ার কথা, সেখানে ড্রেনের পানি রাস্তায় আসছে। এটা আমি বলবো, সম্পূর্ণ অদক্ষতার অভাব। আর, ভোটারদের উদ্দেশ্য বলবো, নির্বাচনী ইশতেহারগুলো বিবেচনা করে যিনি যোগ্য, তাকেই যেন জনগণ নির্বাচিত করে। কুমিল্লার জন্য কল্যাণ হবে, এমন কাউকেই বাছাই করতে হবে। সকলে মিলে আমরা একজন যোগ্য মেয়র নির্বাচিত করবো, যিনি কুমিল্লার সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করে দিবে।