সোহেল শিকদারকে রক্ষা ও চেয়ারম্যান পারভেজকে মাটিসসাত করার পরিকল্পনা

আ'লীগ নেতা রওশন আলী মাস্টার ও চেয়ারম্যান আজাদের কথোপকথনের অডিও ফাঁস
সোহাইবুল ইসলাম সোহাগ
প্রকাশ: ১০ মাস আগে

কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রৌশন আলী মাস্টার ও দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদের সঙ্গে মুঠোফোনে কথোপকথনের একটি অডিও ফাঁস হয় দুই দিন আগে। বর্তমানে যা আমাদের কুমিল্লার কাছে সংরক্ষন রয়েছে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের এই দুই নেতা অডিও রেকর্ডে তিতাস উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক পারভেজ হোসেন সরকারকে মাটিসসাত করা ও গত ৩০ এপ্রিল নিহত যুবলীগ নেতা জামাল হত্যার অন্যতম আসামী সোহেল শিকদারকে রক্ষার পরিকল্পনার কথা শোনা যায়। এই অডিও রেকর্ড ফাঁস হওয়ার পর দলের ভেতরে ও বাহিরে রাজনৈতিক অঙ্গনসহ জেলাজুড়ে সমালোচনার ঝড় বইছে।

এই দুই আওয়ামী লীগ নেতাদের ৪৭ সেকেন্ডের অডিও ক্লিপটি স্থানীয় বিভিন্ন ব্যক্তির মোবাইল ও ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে ভাইরাল হয়ে যায়। যা দৈনিক আমাদের কুমিল্লার অফিসেও রয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অডিও ক্লিপটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আরও ২ দিন আগে প্রকাশ পায়। তবে রবিবার এটি ভাইরাল হয়ে যায়।

অডিও ক্লিপসে দুজনের কথোপকথনে শোনা যায়, সোহেল নামে এক নেতাকে সামনের নির্বাচনে ব্যবহার করে তিতাস উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পারভেজ হোসেন সরকারকে মাটিসসাত করার কথা উঠে এসেছে কথোপকথনে।

কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রৌশন আলী মাস্টার ও দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদের সঙ্গে মুঠোফোনে কথোপকথনের হুবহু অডিও ক্লিপটি নিচে তুলে ধরা হল-

আবুল কালাম আজাদ:- আমনে একটু সোহেল ভাইয়ের ব্যাপারে আপনি একটু বইলা দিয়া ওপেন কইরা দিয়েন।আমাদেরওতো সামনে ইলেকশান আছে,আমাদের ওখানে একটু লোকটুক লইয়া…

রৌশন আলী মাস্টার:- ওটা আমার সাথে গেলেই সারে,বাস…. আমি আমি বইলা রাখছি।

আবুল কালাম আজাদ:-না, না , আজকে বইলা দেন । থাকলে আপনি যে-কোন প্রোগ্রামে নিয়া আসেন।আপনার সুবিধা হবে কি.., আমাদের সুবিধা হবে কি..আমাদের সুবিধা হবে যে, আমাদের এখানে যেমন সে তিতাসের লোকজন নিয়ে থাকবে, অনেক লোক নিয়ে সে ঢুকতে পারবে, বুঝছেন না।তাইলে জিনিসটা ভালো হয়।

রোশন আলী মাস্টার:- আচ্ছা ঠিক আছে বলব.. বলব

আবুল কালাম আজাদ:-আপনি বলেন যে,পারভেজরে মাটিসসাত করার জন্য আমরা সোহেলরে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করব, এইটাই বলেন।

রোশন আলী মাস্টার:-আচ্ছা ঠিক আছে, ওকে।

হত্যার হুমকিসহ নানান বিষয় নিয়ে তিতাস উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক পারভেজ হোসেন সরকার বলেন, আমার কাছে এই কল রেকর্ড ২ দিন আগে আসে। এখানে ওনাদের বক্তব্য সু-স্পষ্ট যে,আমাকে তারা হত্যা করতে চায়। ভারাক্রান্ত হৃদয়ে বলতে চাই,আমিতো জেলা উত্তরের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক। দলের জন্য আমি কি না করেছি। যে সোহেল শিকদার কে নিয়ে ওনারা কথোপকথন করেছে তার বিষয়ে আমি আরও ৩ মাস আগে জেলা পুলিশ বরাবর আবেদন করেছিলাম যে,তারা আমাকে হত্যা করার পরিকল্পনা করছে। যা আজ এই রেকর্ডিং এ অনেকটাই বুঝা যায়।বিষয়টি আমি আমার উর্ধ¦তন নেতৃবৃন্দদের অবগত করেছি।

এ বিষয়ে বক্তব্য নেয়ার জন্য দেবিদ্বার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদের সাথে একাধিকবার মুঠোফোন যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তিনি কল রিসিভ করেননি।

অডিও ফাঁসের বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রৌশন আলী মাস্টার বলেন, আপনি এই বিষয়টি নিয়ে কোথায় বসতে চান।আমি ওখানেই আপনার সাথে বসে বিষয়টি খোলাসা করব। রেকর্ডিংটিতে পারভেজকে নিয়ে কোনো খারাপ পরিকল্পনা করা হয়নি।কথোপকথনের রেকর্ডটিতো আমার কাছেও আছে। সে বলছে এলাকাতে প্রবেশ করতে চায়। এটাতো খারাপ কিছু দেখছিনা।

কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রুহুল আমিন বলেন, সত্যি বলতে এই কল রেকর্ডটি আমিও শুনে হতভম্ব হয়েছি। এসব কথা তারা বলবে যা আমি কখনও ভাবিনি। আমি পারভেজকে বলেছি সে যেন আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করে। বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দদের সাথে কথা বলে একটি সিদ্ধান্ত নিতে হবে।