বৃহস্পতিবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
শোকজ করা হয়েছিল সম্রাট-খালেদকেরিফাত হত্যায় ৯ জনের বিরুদ্ধে পরোয়ানামিন্নি আদালতে আসলেন বাবার মোটরসাইকেলে করেছাত্রদলের সভাপতি খোকন, সম্পাদক শ্যামলছিঁচকে চুরি, সাগর চুরি আর পিনাটতত্ত্বএকান্ত সাক্ষাৎকার আধুনিক পৌরসভা গড়তে কাজ করে যাচ্ছি: চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার মেয়রহাজীগঞ্জে আমড়া খাওয়ার জন্য প্রাণ দিল আরফাকুমিল্লায় স্ত্রী হত্যা মামলায় স্বামী-শ্বশুর গ্রেফতারবরুড়ায় শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণসভা‘বাংলাদেশের শত্রু বাংলাদেশই’সাকিবদের সামনে আফগান চ্যালেঞ্জআফগানিস্তান ম্যাচের আগে হঠাৎ দলে আবু হায়দারপ্রবাসীদের লাশ টাকার অভাবে বিদেশে পড়ে থাকবে না, লাশ আসবে সরকারি খরচে: অর্থমন্ত্রীকুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন- আয়তন বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত ৭ বছর ধরে ঝুলে আছে মন্ত্রনালয়েধর্ষণদৃশ্য দেখানোর অপরাধে টিভি চ্যানেলকে জরিমানাজোড়া লাগছে তাহসান-মিথিলার সংসার!মাহমুদউল্লাহদের ১৯৩ রানের টার্গেট দিলেন সাকিবরাবড় সংগ্রহের পথে ঢাকাজাজাইয়ের ব্যাক টু ব্যাক ঝড়ো ফিফটি, উড়ছে ঢাকাঢাকা বনাম খুলনার খেলা দেখুন সরাসরি

হত্যা মামলার জামিন নিতে এসে কারাগারে সৌদি প্রবাসী

স্টাফ রিপোর্টার ।। কুমিল্লার মুরাদনগরের চাঞ্চল্যকর মোস্তাক হত্যার মুল পরিকল্পনাকারি সৌদি প্রবাসী নুর মোহাম্মদের জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে প্রেরণ করেছে আদালতের বিচারক। গত রোববার ওই হত্যা মামলার চার্জশীটভূক্ত আসামী নুর মোহাম্মদ সৌদি আরব থেকে দেশে এসে কুমিল্লার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করলে বিচারক নামঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণ করেন।
মামলার অভিযোগপত্রের সূত্রে জানা যায়, ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে নুর মোহাম্মদের নেতৃত্বে পাচপুকুরিয়া গ্রামের আমির হোসেন, কাজী সাইফুল, আবদুস সালাম, তাজুল ইসলাম, বজলু মিয়া, দেলোয়ার, শামীমসহ আরও কয়েকজন প্রকল্পের ম্যানেজার মোস্তাক মিয়াকে হত্যার পরিকল্পনা করে। হত্যাকান্ডের জন্য অর্থ বিনিয়োগ এবং সার্বিক পরিকল্পনা শেষে ওই বছরের ডিসেম্বরে সৌদি আরব চলে পাড়ি দেয় নুর মোহাম্মদ। গত বছরের ২৪ জানুয়ারি প্রজেক্টের কাজের ব্যাপারে ম্যানেজার মোস্তাককে তার মোবাইল ফোনে কল করে সাইফুল। ওইদিন দুপুরে ঢাকা থেকে রওয়ানা হয়ে কুমিল্লার মুরাদনগরে সন্ধ্যায় পৌঁছে প্রজেক্টের লোকজনের সাথে দেখা করে। রাত সাড়ে সাতটার দিকে বাঁশকাইট এলাকায় পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী উল্লেখিতরা আল্লাহর দান মৎস্য প্রকল্প’র ম্যানেজার মোস্তাক মিয়াকে হত্যা করে লাশ বাঁশকাইট মরিচা খালে ফেলে দেয়। মোস্তাকের স্ত্রী পারভীন আক্তার তাঁর স্বামীকে ফোনে না পেয়ে ২৫ জানুয়ারি মুরাদনগর এসে খোঁজাখুঁজি করেন। পরে তিনি মুরাদনগর থানায় সাধারণ ডায়েরী করেন। ২৭ জানুয়ারি খালের পাড়ে মোস্তাকের লাশের সন্ধান মিলে। ওইদিনই মুরাদনগর থানায় অজ্ঞাতনামা আসামী উল্লেখ করে তিনি মামলা করেন। পুলিশ মামলাটির তদন্তে নেমে ফেব্রুয়ারির ৯ তারিখ থেকে ১৪ তারিখ পর্যন্ত মৎস্য প্রজেক্টের ৫ আসামীকে গ্রেফতার করে। আসামীরা ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে হত্যার ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারি ও অর্থের যোগানদাতা হিসেবে মৎস্য প্রজেক্টের মালিকানা অংশীদার সৌদি প্রবাসী নুর মোহাম্মদের নাম প্রকাশ করে। গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর পুলিশ মোস্তাক হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার অপরাধে নুর মোহাম্মদসহ ৮ আসামীর নাম উল্লেখ করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন............
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *