ছেলে-মেয়েদের পরিবর্তনের সময় কি করণীয়

শৈশব থেকে কৈশোরের ৩ বছর
স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৬ মাস আগে

এন এ মুরাদ ।। বয়ঃসন্ধি কাল খুবই সংক্ষিপ্ত সময়। এর মেয়াদ এক থেকে তিন বছর। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে ১০-১৯ বছর হচ্ছে কৈশোরকাল। তবে আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে মেয়েদের বয়:সন্ধিকাল ৯-১৪ বছর আর ছেলেদের ১০- ১৭ বছর । বিশেষ করে ৫ম থেকে ৭ম শ্রেণি পর্যন্ত জীবনের এই কালটাই হচ্ছে বয়ঃসন্ধির মুখ্য সময় । এই বয়সে ভালোমন্দ বোঝার ক্ষমতা কমই থাকে। যা দূরন্ত শৈশব থেকে কৈশোরে কোটায় নিয়ে যায়।
মানব জীবনকে মোটামুটি ৬টি কালে ভাগ করা যায় – (১) মাতৃগর্ভকাল, (২) শৈশবকাল, (৩) কৈশোর বা বয়ঃসন্ধিকাল , (৪) যৌবনকাল, (৫) প্রৌঢ় ও (৬) বার্ধক্য কাল। সুস্থ সুন্দর জীবন যাপনের জন্য প্রতিটি ধাপ সম্মন্ধে জানার গুরুত্ব থাকলেও এর মধ্যে বয়ঃসন্ধিকালের সম্বন্ধে জানা অপরিহার্য।
কৈশোরের কোটায় পড়ে মেয়েদের পরিবর্তন শুরু হয় ছেলেদের এক বছর আগে। এই পরিবর্তনের সময় মেয়েদের দেহের উচ্চতা বাড়ে। স্তন ও নিতম্ব আকারে বড় ও ভারী হয়। দেহে ডিম্বকোষ তৈরি ও মাসিক ঋতুস্রাব শুরু হয়। যোনিপথের চারদিক যৌনকেশ গজায়। বগলে লোম গজায়। কণ্ঠস্বর ভারী বা উঁচু হতে থাকে। মুখে তেল বাড়ে ও ব্রণ হয়। গর্ভধারণে সক্ষম হয়।
ছেলেদের ক্ষেত্রে দেহের উচ্চতা বাড়ে। গলার স্বর অল্প সময়ের জন্য ভেঙে যায় ও ভারী হয়। মাংসপেশী দৃঢ় হতে থাকে। লিঙ্গ বড় হয়। অন্ডকোষ ঝুলে যায় ও বড় হয়। মুখে গোঁফ-দাড়ি, বগলে, বুকে ও তলপেটে লোম এবং লিঙ্গের গোড়ায় যৌনকেশ গজায়। মুখে তেল বাড়ে ও ব্রণ হয়। দেহে শুক্রকোষ তৈরি হয়। বীর্যপাত বা ‘স্বপ্নদোষ’ শুরুহয়।
এ সময়-জীবনটা থাকে বড়ই আবেগপ্রবণ। কারণ শরীর খুব দ্রুত বদলাতে থাকে। হরমোন বৃদ্ধির কারণে মেয়েদের শরীর থেকে মেয়েলী গন্ধ এবং ছেলেদের শরীর থেকে পুরুষালী গন্ধ ছড়াতে থাকে। পুরো বয়ঃসন্ধি কালেই এ পরিবর্তন ঘটতে থাকে।
সচেতনতার দিক থেকে বলতে গেলে ছেলে-মেয়েদের জন্য বয়ঃসন্ধিটা খুব খারাপ সময়। তখন কিশোর-কিশোরীরা থাকে খুব চঞ্চল বা একদম চুপ, আবার খিটখিটে মেজাজের, নীজদের আলাদা করে রাখা কিংবা খুব মিশুক আচরণ করেন। তাই ওই সময়টাতে কিশোর-কিশোরীদের প্রতি মা-বাবা, এবং স্কুলে শিক্ষক-শিক্ষিকাকে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে ।
কিশোর-কিশোরীদের বয়ঃসন্ধির সচেতনা ও করণীয় বিষয় নিয়ে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার -পরিকল্পনা কেন্দ্রগুলো প্রত্যান্ত অঞ্চলে দারুন ভাবে কাজ করছেন।
কখনো কখনো নিকটস্থ মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্কুল সমূহে কিশোর-কিশোরীদের নিয়ে সচেতনতামূলক খোলা-মেলা আলোচনার জন্য ছুটে যান তারা। যেন কিশোর – কিশোরীরা কুসংস্কার, ধর্মান্ধতা, ভুল তথ্য এবং বিকৃত চিন্তা-ভাবনার শিকার না হয়।
শহরের আধুনিক ছেলে-মেয়েরা তাদের অভিভাবক, শিক্ষক, বা ইন্টারনেট থেকে জ্ঞান অর্জনের মাধ্যমে সচেতনতা অবলম্বন করলেও গায়ে বসবাসকারী ৮০ শতাংশ ছেলে মেয়েরা এই বিষয়ে অসচেতন।
যখন তাদের দেহ বাড়তে থাকে তখন সামাজিকভাবে সে হেয় প্রতিপন্ন হওয়ার মুখোমুখি হয়। দেহের আকৃতি এবং বৈশিষ্ট্যাবলী নাজুক বলে অনুভব করে। একান্ত সঙ্গোপনে নিজেকে খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখে। গায়ের বেশীর ভাগ কিশোর -কিশোরীদের কাছে বয়সন্ধিকালটা আত্ম-মর্যাদার ইসু। তখন অনেক কিছু বলতে না পারায় অজ্ঞতাবসত বিষন্নতার সাগরে হাবুডুবু খায় তারা।

তাই, বয়ঃসন্ধি কালে মা-বাবা এবং শিক্ষক-শিক্ষিকারা কিশোর – কিশোরীদের প্রতি বিশেষ যত্নবান হওয়া খুবই জরুরি। ওই সময় তাদের সঙ্গে সহজ-সাবলীল, বন্ধুভাবাপন্ন ও সহনশীল আচরণ করতে হবে। বয়ঃসন্ধিকালে ছেলে-মেয়েরা বার বার খেতে চায়। তখন তাদের পুষ্টিকর খাবার দিতে হবে । এ সময় ওদের দৈহিক বৃদ্ধির পাশপাশি মানসিক বিকাশ শুরু হয়। তারা অজানাকে জানতে চায়, অচেনাকে চিনতে চায়। নতুনের প্রতি কৌতুহল বাড়ে। মেয়েদের ক্ষেত্রে যদি কেউ তাকে বুঝতে চান এবং আবেগ প্রবন সহানুভূতি দেখান, তার কাছে সে দূর্বল হয়ে পড়ে। এই দূর্বলতা কখনো কখনো তাদের জীবনে বয়ে আনে ভংকর কালো অধ্যায়। তাই বয়ঃসন্ধিকালে মেয়েদের চোখে চোখে রাখতে হবে। এসময় তাদের বাসা-বাড়ি বা প্রাইভেট টিউটরের কাছ একা রেখে যাওয়া ঠিক না।
পরিবারের কেউ একজন বন্ধু হয়ে ছায়ার মতো পাশে থেকে পরামর্শ দিতে হবে। তাকে বুঝাতে হবে যে, তুমি এখন যৌবন প্রাপ্ত হচ্ছ। বুকে উড়না পড়ার অভ্যাস করো। সবায়কে বিশ্বাস করোনা। কারো প্রলোভনে পা দিওনা। প্রত্যেকের জীবনে এমন মূহর্তগুলো আসে। এভাবে বিশেষ নজরদারিতে রাখতে হবে। বয়ঃসন্ধির তিন বছরই শেষ নয়, ২৩ – ২৫ বছর বয়স পর্যন্ত ঘটে যৌবনের ক্রমবিকাশ ।
কিশোর-কিশোরীদের বয়ঃসন্ধিকালে স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও নিরাপত্তার ক্ষেত্রে সরকারের সঠিক পরিকল্পনা, কার্যকর দিক নির্দেশনা জরুরি। তাদের দেয়া যেতে পারে কিশোরকালীন ভাতা, নৈতিক শিক্ষা, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক মূল্যবোধের দীক্ষা। তাহলেই কিশোর-শিরোরীরা হবে দায়িত্বশীল এবং ভবিষৎ দেশ গড়ার প্রকৃত কারিগর।

বিশ্লেষক
সাংবাদিকঃ এন এ মুরাদ
মোবাইলঃ০১৬৭২-৪১৬৫২৩
Email: newsmurad65@gmail.com